Home জাতীয় বরিশালে নিয়মিত বাজার মনিটরিং ও ভোক্তা অধিকার বিষয়ক মোবাইল কোর্ট অভিযান

বরিশালে নিয়মিত বাজার মনিটরিং ও ভোক্তা অধিকার বিষয়ক মোবাইল কোর্ট অভিযান

20
0
SHARE

Sharing is caring!

আজ ১৬ মে বিকাল ৪ টার দিকে জেলা প্রশাসক ও বিজ্ঞ জেলা ম্যাজিস্ট্রেট বরিশাল এর নির্দেশনায় বরিশাল নগরীর বিভিন্ন স্থানে ভোক্তা অধিকার ও মাহে রমজান উপলক্ষে মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রুম্পা ঘোষ। নগরীর সাগরদী বাজার এলাকার মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রুম্পা ঘোষ। পবিত্র মাহে রমজানে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণ এবং পণ্যের গুনগত মান বজায় রাখতে এ অভিযান পরিচালিত হয়। এসময় তারা বাজার ব্যবস্থা রমজানে মুনাফালোভী অসাধু ব্যবসায়ীদের প্রতারণা হতে সাধারণ জনগণের ভোগান্তি লাঘবে, নিত্য প্রয়োজনীয় বাজার সামগ্রী মূল্য তালিকা, অতিরিক্ত মূল্য আদায়, পরিস্কার পরিচ্ছন্নতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে মোবাইল কোর্ট অভিযান পরিচালনা করেন। অভিযান চালিয়ে মেয়াদ উত্তীর্ণ ও মেয়াদ উল্লেখ না থাকায় রাজ্জাক স্টোর এর মালিক আঃ রাজ্জাক কে ৩,০০০/- হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। এছাড়া বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) পরীক্ষায় নিম্নমান প্রমাণিত হওয়ায় ৫২টি খাদ্যপণ্য অবিলম্বে বাজার থেকে প্রত্যাহার করার নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে এসব খাদ্যপণ্য বিক্রি ও সরবরাহে জড়িতদের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারি ধারাবাহিকতায় আজ এই অভিযান পরিচালনা করা হয়। বিএসটিআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়, পবিত্র রমজান মাস উপলক্ষে খোলা বাজার থেকে ৪০৬টি পণ্যের নমুনা ক্রয় করে বিএসটিআইয়ের ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৩১৩টি পরীক্ষার প্রতিবেদন পাওয়া গেছে, যার মধ্যে ৫২টি পণ্য পরীক্ষায় অকৃতকার্য হয়েছে। বাসসের প্রতিবেদন অনুসারে ভেজাল পণ্যগুলো হলো সিটি অয়েলের সরিষার তেল, গ্রিন বি চিংয়ের সরিষার তেল, শবনমের সরিষার তেল, বাংলাদেশ এডিবল অয়েলের সরিষার তেল, কাশেম ফুডের চিপস, আরা ফুডের ড্রিংকিং ওয়াটার, আল সাফির ড্রিংকিং ওয়াটার, মিজান ড্রিংকিং ওয়াটার, মর্ণ ডিউয়ের ড্রিংকিং ওয়াটার, ডানকান ন্যাচারাল মিনারেল ওয়াটার, আরার ডিউ ড্রিংকিং ওয়াটার, দীঘি ড্রিংকিং ওয়াটার, প্রাণের লাচ্ছা সেমাই, ডুডলি নুডলস, শান্ত ফুডের সফট ড্রিংক পাউডার, জাহাঙ্গীর ফুড সফট ড্রিংক পাউডার, ড্যানিশের হলুদগুঁড়া, প্রাণের হলুদগুঁড়া, ফ্রেশের হলুদগুঁড়া, এসিআইর ধনিয়াগুঁড়া, প্রাণের কারি পাউডার, ড্যানিশের কারি পাউডার, বনলতার ঘি, পিওর হাটহাজারী মরিচগুঁড়া, মিষ্টিমেলা লাচ্ছা সেমাই, মধুবনের লাচ্ছা সেমাই, মিঠাইর লাচ্ছা সেমাই, ওয়েল ফুডের লাচ্ছা সেমাই, এসিআইর আয়োডিনযুক্ত লবণ, মোল্লা সল্টের আয়োডিনযুক্ত লবণ, কিংয়ের ময়দা, রূপসার দই, মক্কার চানাচুর, মেহেদীর বিস্কুট, বাঘাবাড়ীর স্পেশাল ঘি, নিশিতা ফুডসের সুজি, মঞ্জিলের হলুদগুঁড়া, মধুমতির আয়োডিনযুক্ত লবণ, সান ফুডের হলুদগুঁড়া, গ্রীন লেনের মধু, কিরণের লাচ্ছা সেমাই, ডলফিনের মরিচগুঁড়া, ডলফিনের হলুদগুঁড়া, সূর্যের মরিচগুঁড়া, জেদ্দার লাচ্ছা সেমাই, অমৃতের লাচ্ছা সেমাই, দাদা সুপারের আয়োডিনযুক্ত লবণ, মদীনার আয়োডিনযুক্ত লবণ, নুরের আয়োডিনযুক্ত লবণ। ইত্যাদি পন্য তদারকি করেন এবং ব্যবসাহী এবং ক্রেতাদের এ বিষয়ে সচেতন করে। পরবর্তীতে এমন কোন পরিস্থিতি পাওয়া গেলে সেই দোকানদার এবং ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি প্রদান করেন। এ সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সহযোগিতা করেন কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ সদস্যরা। এই অভিযান জনস্বার্থে অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট বৃন্দরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here