Home প্রচ্ছদ সড়ক পথে দক্ষিনের জনপদে স্বপ্নের উন্নয়ন, ভাটি পড়ার সম্ভাবনা নৌরুটে!

সড়ক পথে দক্ষিনের জনপদে স্বপ্নের উন্নয়ন, ভাটি পড়ার সম্ভাবনা নৌরুটে!

18
0
SHARE

Sharing is caring!

দক্ষিনাঞ্চলের মানুষের যাতায়াতের প্রধান পথ হচ্ছে নৌ পথ। কিন্তু এই নৌ পথের বিভিন্ন রুটে বর্তমানে লঞ্চ চলাচল করছে না। আবার সড়কপথের উন্নয়নের ফলে নদীপথে যাত্রী কমছে।
পদ্মাসেতু ও ভোলা-বরিশাল ব্রিজ হলে বর্তমানে সচল আরও বিভিন্ন নৌরুটে ভাটি পড়তে পারে বলে মনে করেন অনেকেই।

ব্রিটিশ আমলে বরিশাল থেকে যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম ছিল নৌপথ। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার পরও এ অঞ্চলে অর্ধশতাধিক নৌপথ চালু ছিল। তবে ১৯৯০ সালের পর থেকেই নাব্য সংকটে নৌপথ বন্ধ হতে থাকে। বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) বরিশাল কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত কয়েক বছরে এ অঞ্চলে ১৩টি নৌপথ বন্ধ হয়ে গেছে। বর্তমানে সচল রয়েছে মাত্র ২১ টি। এর মধ্যে ১৫ টি রুটে লঞ্চ চলাচল সচল আছে , ৩টি রুটে ভায়া লঞ্চ চলাচল করে এবং ৩টি রুটে স্টিমার চলাচল করলেও সেখানে লঞ্চ চলাচল করে না। এছাড়াও বরিশাল থেকে নৌপথে ১৩টি রুট বন্ধ আছে ।

তথ্য সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে বরিশাল থেকে ঢাকা, ভোলা, পাতারহাট, মজুচৌধুরীর হাট(লক্ষীপুর), হিজলা, উলানিয়া -কালীগঞ্জ, লালমোহন, চরকলমী, কালাইয়া/নুরাইনপুর , বোরহানউদ্দিন, বরগুনা , হিজলা ,আমতলী, ভান্ডারিয়া, চরবিশ্বাস/চরমোন্তাজ, বাঘেরহাট (মোড়লগঞ্জ) , কাউখালী, হুলারহাট, বরিশাল-ঢাকা ভায়া নন্দীর বাজার,বরিশাল-লেতরা ভায়া কালাইয়া,বরিশাল ভায়া চাদপুর এ সকল নৌ পথ সচল আছে।
এছাড়া বরিশাল থেকে খেপুপাড়া, মহিপুর , গলাচিপা ,পাথরঘাটা, চরদুয়ানী , স্বরূপকাঠী, পটুয়াখালী, বরিশাল থেকে খুলনা ভায়া মংলা ,আমুল, ইন্দুরকানী, তালতলী, ঘোষের হাট, কাঠালিয়া এই ১৩টি রুটে নৌ চলাচল বন্ধ রয়েছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌ-চলাচল (যাত্রী পরিবহন) সংস্থার কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব সুলতান মাহমুদ আজকের বার্তাকে বলেন,অনেক রুট বন্ধ হয়ে গেছে এবং সচল অনেক রুট বন্ধ হওয়ার প্রায় উপক্রম। পদ্মাসেতু ও ভোলা-বরিশাল ব্রিজ অনেক রুটেই ভাটি পড়বে। লোকাল লাইনের অনেক লঞ্চ রুট বন্ধ হবার সাথে সাথে বিলুপ্তির পথে পৌঁছবে।

বরিশাল বিআইডব্লিউটিএ’র নিরাপত্তা ও ট্রাফিক বিভাগের উপ-পরিচালক আজমুল হুদা মিঠু সরকার বলেন, নৌপথে যাত্রা সাধারনত যাত্রীদের কাছে নিরাপদ এবং আরামদায়ক। পদ্মাসেতু ও ভোলা-বরিশাল ব্রিজ হলেও যাত্রীরা সাশ্রয়ী মূল্যে ভ্রমনের জন্য নৌ পথকেই বেছে নিবে। এতে তেমন কোন রুট বন্ধ হবার সম্ভাবনা নেই। এছাড়া পদ্মাসেতু ও ভোলা-বরিশাল ব্রিজ হলে ব্রিজে মালবাহী যানবাহন বৃদ্ধি পাবে। সেক্ষেত্রে যাত্রীরা নৌ পথকেই বেশি গুরুত্ব দিবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here